কালিয়াকৈরে উপজাতি মেয়েকে পিটালো মেম্বার

আলহাজ হোসেন,কালিয়াকৈর(গাজীপুর) প্রতিনিধি 

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার শিমুলিয়া এলাকায় এক উপজাতি মেয়েকে (১৪) অপবাদ দিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারের বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত ফুলবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য জাহাঙ্গীর আলম মেয়েটিকে বেধড়ক পেটানোর পর জোর করে এক তরুণের সঙ্গে বিয়ে দেন। এরপর আরও বিপাকে পড়েছে মেয়েটির পরিবার।
মেয়েটি স্থানীয় একটি  বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তাকে পেটানোর ভিডিওটি এরমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

অভিযোগ ও এলাকাবাসী, মেয়ের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা হবুয়ারচালা এলাকার সুনিল চন্দ্র বর্মনের  তরুন চন্দ্র বর্মন (২০) বেশ কিছু দিন যাবত ওই মেয়েকে প্রেম নিবেদন করে উত্যাক্ত করে আসছিল।

গত২৬শে মে  বিকাল আনুমানিক ০৫ ঘটিকার সময়  মেয়েকে বাসায় রেখে মেয়ের মা তার স্বামীর বর্তমান ঠিকানা উপজেলা কালামপুর বাসায় যান। এই  সুযোগে রাত আনুমানিক ১০টার সময় উক্ত বিবাদী বাড়ীতে আসে এবং অবস্থান করতে থাকে। পরে এলাকার লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে ওই মেয়ে ও ছেলেকে ঘরে আটক করে।  ওই তরুণ শিশুটির বাড়িতে থাকা অবস্থাতেই ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর সেখানে লোকজন নিয়ে আসেন। এসেই তিনি মেয়েটিকে মারধর শুরু করেন। ওই তরুণের সঙ্গে জোর করে বিয়ে দেন। ২দিন  মেয়ের সঙ্গে থাকার পর ওই ছেলের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। এঘটনায় মেয়ের মা নুপু্র রানী একটি অভিযোগ দায়ের করেন। গত কয়েকদিন যাবত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটিতে দেখা গেছে, ঘড়ে খাটের ওপর বসে থাকা মেয়েটিকে চুলের মুঠি ধরে বেধড়ক পেটাচ্ছেন জাহাঙ্গীর আলম।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ফুলবাড়ীয়া পুলিশ ক্যাম্পের (এস আই) সোহেল মোল্লা জানান, অভিযোগের বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে তিন মাস আগে এই বিষয়ে একটি ঘটনা শুনেছি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button