নরসিংদীতে রেলস্টশনে তরুনীকে হেনেস্থায় অভিযুক্ত মূলহাতা শিলা আক্তারকে গ্রেপ্তার করছে র‌্যাব-১১

নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদী রেলস্টেশনে আধুনিক পোশাকের অজুহাতে এক তরুণীকে হেনেস্তার ঘটনার মূল হোতা শিলা আক্তারকে গ্রেপ্তার করছে র‌্যাব- ১১।

আজ সোমবার দুপুরে এই তথ্য নিশ্চিত করছে র‌্যাব-১১ নরসিংদীর ক্যাম্পের কমান্ডার ফ্লাইট লেফটেন্ট তহিদুল মুবিন খান।
র‌্যাব-১১ সূত্রে জানাযায়, স্টেশনে তরুনীকে লাঞ্ছিতের ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে তরুনী লাঞ্ছিতের মূলহোতা শিলা আক্তার ওরফে শায়লা আত্মগোপনে চলে যায় । পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিবপুর উপজেলার ইটাখোলা এলাকায় শিলার খালার বাসায় অভিযান চালিয়ে রাত ৩টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১১ ।

এর আগে গত বুধবার সকালে নরসিংদী রেল স্টেশনর ১ নং প্লাাটফর্ম ঢাকাগামী চট্রগ্রাম মেইল ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছিলো দুই তরুণ ও এক তরুণী। মেয়টির পড়নে ছিল জিন্স প্যান্ট ও টপস। তা দেখে স্টেশনে অবস্থানরত এক নারী প্রথম ওই তরুণীকে আঘাত করে ও পরে আরও কয়েকজন ব্যক্তি তার ওপরে হামলার চেষ্টা চালায়। ভুক্তভাগী ওই তরুণী দৌড়ে স্টেশন মাস্টারের কক্ষে আশ্রয় নিয়ে মাস্টারকে বাঁচানোর অনুরাধ করে। পরে স্টেশন মাস্টারের মধ্যস্ততায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তাদেরকে ঢাকাগামী চট্টগ্রাম মেইল ট্রেন উঠিয়ে দেয়া হয়।

তরুণীকে হেনেস্থা ও মারধরের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হলে টনক নড়ে সংশ্লিষ্টদের। এতে প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে ব্যাপক সমালাচনা হলে ঘটনার দুই দিন পর শুক্রবার রাত নরসিংদী শহরের ইউএমসি জুট মিলের সামনে থেকে ইসমাইল মিয়া নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশ। পরে তাক ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে নরসিংদীর অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহনাজ সিদ্দিকীর আদালতে সোপর্দ করা হয়।

আদালতের নির্দেশে ওই রাতেই নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইমায়েদুল জাহদী বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০ ও ৩০ ধারায় ভৈরব রেলওয়ে থানায় মামলা করেন। মামলার এজাহার এক নারীসহ দু ‘জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে এবং অজ্ঞাত আরও এক নারী ও ১০ পুরুষকে আসামি করা হয়।  সিসি ক্যামরার ফুটেজ ও মুঠাফোনের ধারণ করা ভিডিওতে নিশ্চিত হওয়ার পর তাদেরকে আসামি করা হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button