মাকে হত্যার পর লাশ ঘরের মেঝেতে পুতে রাখলো ছেলে।

রংপুর প্রতিনিধি

মাকে হত্যার পর লাশ ঘরের মেঝেতে পুতে রাখলো ছেলে। সেই ঘরেই আবার ৫ দিন যাবত স্বাভাবিকভাবে বসবাসও করে আসছিলো পাষন্ড ছেলে  জামিল। মনে ছিলনা এতটুকু অপরাধীর ছাপ। শুনলে গায়ে কাটা দেয়ার মত এমন রোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে রংপুরে।

জেলার কাউনিয়ার চরে গেলো ৫ দিন ধরে খোজ মিলছিলনা ষাটোর্ধ জমিলা খাতুনের। প্রতিবেশি এক মহিলা মঙ্গলবার খুঁজতে গিয়ে দেখেন জমিলার ঘরের মেঝে নতুনভাবে করা, তাতে সন্দেহ হলে গ্রামের আরও কয়েকজনকে নিয়ে মাটি খুড়ে দেখতে পান জমিলার লাশ।

পরে পুলিশে খবর দিলে জামিলকে আটকের পর সে দুই ধরনের কথা বলে একবার বলেন বড় ভাইয়ের নির্দেশে সে মাকে খুন করেছে আবার বলে মায়ের নামে কিস্তিতে ৩ লাখ টাকা নিয়ে বড় ভাই পালিয়ে যায়। ভাবেন মা  আর বেচে না থাকলে  কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে হবেনা এমন চিন্তা থেকেই  মাকে লোক দিয়ে হত্যা করায় বড় ভাই।

পুলিশও বলছে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে টাকা পয়সা নিয়ে বিরোধের জেরে নিজেই মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার কথা স্বীকার করেছে ছেলে জামিল। স্থানীয় চেয়ারম্যানও জানিয়েছে টাকা পয়সা সংক্রান্ত বিষয়েই খুন করা হয় মাকে।

নিজের গর্ভধারিনীকে এভাবে  হত্যার কারণে ছেলেসহ এরসাথে অন্য কেউ জড়িত থাকলে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের দাবি জানান এলাকাবাসী।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button