যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় স্বামীসহ তিন জনকে মৃত্যুদন্ড

রুহুল আমীন জুয়েল, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি।

কিশোরগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা মামলায় স্বামীসহ তিন জনকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আদালত।

কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক মো. হাবিবুল্লাহ  আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এ রায় ঘোষনা করেন।

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হচ্ছেন, নিহত গৃহবধূ হেনা আক্তারের স্বামী খোকন মিয়া, তার বোন জরিনা খাতুন ও মামাতো ভাই জালাল মিয়া। একই সাথে খোকন মিয়াকে ৫০ হাজার টাকা, জরিনোকে ২০ হাজার টাকা ও জালালকে ৩০ হাজার টাকা অর্থ দন্ড দেয়া হয়।

এ ছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায়, খোকনের বাবা-মাসহ ৩ জনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, করিমগঞ্জ উপজেলার গুজাদিয়া পাথারিয়াপাড়া গ্রামের খোকন মিয়ার সাথে বিয়ে হয় পার্শবর্তি কৈলাকুড়ি গ্রামের আব্দুল কদ্দুসের মেয়ে ফেনা ওরফে হেনা আক্তারের। বিয়ের পর যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে অত্যাচার নির্যাতন শুরু করেন স্বামী খোকনসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এক পর্যায়ে হেনার বাবার বাড়ি থেকে খোকনকে নগদ ৪০ হাজার টাকা, গাভী ও নতুন ঘর তৈরি করে দেয়া হয়। কিন্তু এর পরও আরও এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন খোকন।

এ নিয়ে কলহের জের ধরে ২০১৫ সালের ৪ অক্টোবর গভীর রাতে গৃহবধূ ফেনা ওরফে হেনা আক্তারকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করেন খোকন ও তার স্বজনরা।

আরোও পড়ুন: নিখোঁজের দুইদিন পর উদ্ধার হলো এক অটোরিকশা চালকের লাশ

এ ঘটনায় পরদিন হেনা আক্তারের ছোটভাই মো. সাইকুল ইসলাম বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যা‌তন দমন আইনে ৮ জনকে আসমি করে করিমগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ১৫ মার্চ ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আদালতে দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে আজ আসামিদের উপস্থিতিতে রায় ঘোষনা করা হয়। এতে খুশি রাষ্ট্রপক্ষ। এটি একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত বলে মনে করেন, ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর এড. এম এ আফজল ।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button