শেরপুরে ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতামূলক আন্ত:ধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠিত

রেজাউল করিম বকুল, শেরপুর প্রতিনিধি

শেরপুরে ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতামূলক আন্ত:ধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (০৫ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সাম্প্রদায়িক বিষবাক্য ছড়ানো হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য ৩০ লক্ষ মানুষ রক্ত দিয়েছেন এক সাথে মিলে মিশে থাকার জন্য। পবিত্র কুরআন ও মহানবী (সা.) এর জীবনী তথা মদিনা সনদ, মক্কা বিজয়ের ঘটনা এবং বিভিন্ন হাদিস থেকে আমরা অসাম্প্রদায়িক সমাজ ব্যবস্থার কথা জানতে পারি। বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক সমাজ রক্ষায় আমাদেরকে মহানবীর জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।

জেলা প্রশাসক সাহেলা আক্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংসদের হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিউর রহমান আতিক এমপি।

তিনি বলেন, কোন অশুভ শক্তি যেন রাজনৈতিক হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে এদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পরিবেশ বিনষ্ট করতে না পারে এবং দেশের মধ্যে দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টি করতে না পারে এ বিষয়ে সকল ধর্মীয় নেতৃবৃন্দকে তাদের নিজ নিজ অবস্থান হত্তে দায়িত্ব পালন করতে হবে। বিশেষ করে মসজিদের খতিব ও ইমামগণ জুমার বয়ানে নিয়মিত ভাবে তুলে ধরতে পারেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান বিপিএম, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সাইয়েদ এজেড মুর্শেদ আলী, সিভিল সার্জন ডাঃ অনুপম ভট্রাচার্য্য, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট চন্দন কুমার পাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম হিরু, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, আইনজীবী সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মো. মুখলেছুর রহমান আকন্দ।

এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, শ্রীবরদী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডিএম শহিদুল ইসলাম, শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি বিপ্লব কুমার বিশ্বাস প্রমুখ।

সংলাপে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, নির্বাহী কর্মকর্তা বৃন্দ, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, সাংবাদিক প্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সংস্কৃতি কর্মীসহ জেলার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার প্রতিনিধিগণ অংশ গ্রহণ করেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button