সম্ভাব্য দুর্ভিক্ষ মোকাবিলায় অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাড়ানোর পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর

নাসির উদ্দিন

যুদ্ধ বিগ্রহের কারণে বিশ্বজুড়ে দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, উৎপাদন ঠিক রাখতে পারলে বাংলাদেশকে দুশ্চিন্তায় পড়তে হবে না। এতে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে অন্য দেশকে সহযোগিতাও করা যাবে। বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে, ভোজ্যতেল ও পেয়াজের মতো পণ্যে পরনির্ভরশীলতা কমানোর তাগিদ দিয়ে, রপ্তানিবাজার সম্প্রসারণের নির্দেশ দেন সরকার প্রধান।

কৃষিখাত চাঙ্গা রাখতে ১৯৭৩ সালে জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রবর্তন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ৭৫ পরবর্তী রাজনৈতিক পটপরিবর্তনে বাতিল করা হয় পুরস্কারের প্রথা। ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসে তহবিল গঠন আইন প্রণয়নসহ যাবতীয় সমস্যা দূর করে ২০১৬ সাল থেকে পুরস্কারটি আবারও চালু করে আওয়ামীলীগ সরকার।

কৃষিক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ও অনুকরণীয় অবদান রাখায় ১৪২৫ বঙ্গাব্দের জন্য ১৫ এবং ১৪২৬ বঙ্গাব্দের জন্য ২৯ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে বঙ্গবন্ধু কৃষি পুরস্কার দেয়া হয়। এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার পক্ষে পুরস্কার তুলে দেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক।

কৃষি ও কৃষকের জন্য বঙ্গবন্ধুর অবদান তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেন,সব শাসনামলেই ঋণ, ভর্তুকি এবং প্রনোদণা দিয়ে কৃষির উন্নয়নে কাজ করেছে আওয়ামী লীগ সরকার।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে পাল্টাপাল্টি নিষেধাজ্ঞায় বিপর্যস্ত বিশ্ব। এমন মন্তব্য করে বৈশ্বিক মন্দা এবং সম্ভাব্য দুর্ভিক্ষের কবল থেকে বাঁচতে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন সরকারপ্রধান।

পেয়াজ, ভোজ্যতেলসহ যেসব কৃষিপণ্য এখনও আমদানি করতে হচ্ছে, সেগুলোতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের ওপর জোর দেন শেখ হাসিনা।

শীত মৌসুমে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার তিক্ত অভিজ্ঞতা স্মরণ করে, সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সবাইকে টিকা নেয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button