আন্তর্জাতিক

দাউদের খাবারে বিষ! আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি

মোহনা অনলাইন

ভারতের ‘মোস্ট ওয়ানটেড’ ডন দাউদ ইব্রাহিম দীর্ঘকাল ধরেই নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় বাস করছেন পাকিস্তানে। পাকিস্তান সরকারের মদতে তাঁর প্রতিপত্তিও একেবারে আকাশছোঁয়া। তাঁর বর্তমান অবস্থা কী, সে সম্পর্কে গোটা বিশ্ব জুড়ে প্রায়শই ছড়ায় বিভিন্ন ধরনের খবর। সম্প্রতি এমনই এক খবর চাঞ্চল্য ছড়িয়ে দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই খবরে জানানো হয়েছে যে, বিষ খাওয়ানো হয়েছে কুখ্যাত ডন দাউদ ইব্রাহিমকে। 

রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিষের প্রভাবে ভয়ানকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন দাউদ ইব্রাহিম। তড়িঘড়ি তাঁকে ভর্তি করানো হয়েছে পাকিস্তানের করাচির একটি হাসপাতালে। বর্তমানে তাঁর শারীরিক অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক বলে দাবি করা হয়েছে। হাসপাতালে কড়া নিরাপত্তার বেষ্টনীর মধ্যে ঘিরে রাখা হয়েছে ১৯৯৩ সালের মুম্বই বিস্ফোরণের মূল চক্রীকে।

গুগল নিউজে ফলো করুন Mohona TV গুগল নিউজে ফলো করুন Mohona TV

প্রসঙ্গত, দাউদ যে সপরিবারে পাকিস্তানে গিয়ে লুকিয়ে রয়েছে এবং সেখান থেকে অপরাধ জগতের রিমোট কন্ট্রোল নিজের হাতে রেখেছে , তা আগেই ইসলামাবাদকে তথ্যপ্রমাণ-সহ জানিয়েছে নয়াদিল্লি। কিন্তু, সে তথ্য বারবার অস্বীকার করেছে পাকিস্তান। দুবাই -শারজাতেও দাউদের আনাগোনার প্রমাণ হাতে এসেছে ভারতীয় ইন্টেলিজেন্সের। র‍্যাডারের মধ্যে থাকলেও কূটনীতির বেড়াজালে বহুবার দাউদ ফস্কে গেছে ভারতের হাত থেকে। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরেই বারে বারে দাউদের অসুস্থতার খবর সামনে এসেছে বিভিন্ন মাধ্যমে। কিন্তু তার সত্যতা যাচাই করা যায়নি। ২০১৭ সালের এপ্রিল নাগাদ খবর ছড়িয়েছিল যে, দাউদ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি, অবস্থা আশঙ্কাজনক! কিন্তু, সেই সময় দাউদ-ঘনিষ্ঠ ছোটা শাকিল দাবি করেছিল, সুস্থই রয়েছে দাউদ ইব্রাহিম!

সেই ঘটনার পরেও একবার গুজব ছড়ায় যে, দাউদ নাকি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন! এবারও মাফিয়া ডনের শারীরিক অবস্থা নিয়ে নতুন করে রহস্য ঘনীভূত হয়েছে। তবে, ভারত বা পাকিস্তান, কোনও দেশেরই সরকারি তরফে এবিষয়ে কোনও ঘোষণা করা হয়নি। সম্প্রতি পাকিস্তানে একের পর এক জঙ্গিকে গুলি করে অথবা বিষ প্রয়োগ মেরে ফেলা হচ্ছে। সেই দেশের প্রশাসনিক মহলের ধারণা, ভারতের প্রাথমিক গোয়েন্দা সংস্থা RAW-এর তরফ থেকে এই মিশন চালানো হচ্ছে।

author avatar
Online Editor SEO
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button