বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

সফলভাবে মানুষের মস্তিষ্কে মাইক্রোচিপ স্থাপন করল নিউরালিংক

মোহনা অনলাইন

প্রথমবারের মতো মানুষের মস্তিষ্কে মাইক্রোচিপ স্থাপন করেছে স্নায়ু এবং ব্রেন সংক্রান্ত গবেষণা প্রতিষ্ঠান নিউরালিংক। প্রাথমিক ফলাফলে নিজেদের সফল দাবি করে প্রতিষ্ঠানটি বলছে, যার মাথায় চিপটি বসানো হয়েছে তিনি সুস্থ আছেন এবং চিপ সঠিকভাবে কাজ করছে। 

নিউরালিংকের প্রতিষ্ঠাতা ইলোন মাস্ক সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্স-এ পোস্ট করে এ তথ্যটি শেয়ার করেছেন। তিনি বলেন, ‘গতকাল একজনের মস্তিষ্কে নিউরলিংক বসানো হয়েছে এবং তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছেন।’ মাস্ক বলেন, ‘প্রাথমিক ফলাফল খুবই ভালো এবং নিউরনের স্পাইকগুলো ভালোভাবে নজর রাখছে এই চিপ।’ গেল বছর যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) তাদের মানুষের মস্তিষ্কে মাইক্রোচিপ স্থাপন করে পরীক্ষার অনুমতি দিয়েছে। এরপর এবারই প্রথম মানুষের মস্তিষ্কে মাইক্রোচিপ বসানো হয়েছে।

গুগল নিউজে ফলো করুন Mohona TV গুগল নিউজে ফলো করুন Mohona TV

প্রসঙ্গত, নিউরালিংকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক দীর্ঘদিন ধরেই এই পরীক্ষা চালু করতে উন্মুখ। বিভিন্ন সময় তিনি প্রকাশ্যে এই পরীক্ষা চালুর কথা বলেছেন। এমনকি মানুষের বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়াতে তিনি নিজের সন্তানদেরকেও এ পরীক্ষায় ব্যবহার করবেন বলে মন্তব্য করেছিলেন।

নিউরালিংক যেভাবে কাজ করে

নিউরালিংকের চিপগুলো এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে, যাতে এগুলো মস্তিষ্কের সংকেতগুলোকে যথাযথভাবে বুঝে ব্লুটুথের মাধ্যমে সংযুক্ত ডিভাইসে পাঠাতে পারে। বানরের মস্তিস্কে পরীক্ষা চালানোর সময় এই প্রক্রিয়া সফলভাবে কাজ করেছিল।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই চিপসগুলো জনপরিসরে চালু করার আগে অত্যন্ত নিবিড়ভাবে পরীক্ষা করে দেখতে হবে, যাতে এগুলোতে কোনো ত্রুটি বা দুর্বলতা না থাকে। মাস্ক এর আগে বলেছিলেন, প্রস্তাবিত প্রযুক্তিটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআইয়ের মাধ্যমে মানুষের উৎখাত হওয়ার বিষয়ে উদ্বেগ কমাতে সহায়তা করতে পারে।

নিউরালিংক কম্পিউটার ও মানুষকে সংযুক্ত রাখবে। মানুষের মস্তিষ্কে বসানো একটি চিপের সাহায্যে এই প্রক্রিয়াটি কাজ করবে। ওই চিপটি একটি ডিভাইসের সঙ্গে যুক্ত থাকবে এবং ব্লুটুথের সাহায্যে মস্তিষ্কের সংকেতগুলো যুক্ত থাকা ডিভাইসের সাহায্যে দেখা যাবে।

যুক্তরাজ্যের লিডস বেকেট ইউনিভার্সিটির ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সিনিয়র প্রভাষক ডক্টর রজ ওয়াট-মিলিংটন বলেন, আমরা যেসব ডিভাইস ব্যবহার করি, নিউরালিংকের চিপস সেসব ডিভাইসগুলোর সঙ্গে আমাদের মস্তিষ্ককে যুক্ত করবে।

‘ব্যাপারটা হচ্ছে, এই চিপসগুলো আমাদের মস্তিষ্কের ইলেক্ট্রনিক সংকেতগুলোকে রিয়েল টাইমে সংগ্রহ করবে, সেগুরোকে প্রসেস করবে এবং ব্লুটুথের মাধ্যমে সংযুক্ত ডিভাইসে প্রেরণ করবে। এর ফলে যার হাত অকেজো, তিনিও তার স্মার্টফোনটি চালাতে পারবেন। ভবিষ্যতে এই চিপের সাহায্যে মাউস বা কী-বোর্ডের কাজও করা যাবে, যাতে হাত নাড়াতে পারেন না, এমন যে কেউ মস্তিষ্কের সংকেত ব্যবহার করে কম্পিউটার ও কী-বোর্ড চালাতে পারেন।

author avatar
Online Editor SEO
Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button